যে জাতি গুণীজনদের কদর করতে জানে না সে দেশে গুণীজন জন্মায় না— সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন

0
456
728×90 Banner

হলধর দাস : মহান একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে শিশু কিশোর থেকে তরুণ সমাজ সকলের জ্ঞানের আলোয় বিচরণ করার অনন্য ক্ষেত্র ‘বই হোক অনন্য সুহৃদ’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে নরসিংদী জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে নান্দনিক পরিবেশে জেলা প্রশাসন, নরসিংদী কর্তৃক আয়োজিত পাঁচ দিন ব্যাপী অমর একুশে বইমেলা-২০১৯, সেমিনার ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ২৭ ফেব্রয়ারি বুধবার আলোচনা সভা, ভাষা সৈনিক ও কবি সাহিত্যিকদের সম্মাননা অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নরসিংদী সুযোগ্য জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট প্রতিভা অনুসন্ধানী ব্যক্তিত্ব সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক)মোহাম্মদ আব্দুল আউয়াল এর সভাপতিত্বে
সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট(এনডিসি) মোঃ শাহ আলম মিয়ার সুললিত কন্ঠে উপস্থাপিত এ সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন নরসিংদীর সুযোগ্য পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহম্মেদ বিপিএম পিপিএম,নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ যথাক্রমে প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক সূর্য্যকান্ত দাস,দৈনিক খোঁজখবর পত্রিকার সম্পাদক মনজিল-এ-মিল্লাত সহ ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ ও সুধীজন।
অমর একুশে বই মেলা-২০১৯ এ কবি সাহিত্যিকদের সম্মাননা যাদের প্রদান করা হয়, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন ঃ- ভাষা আন্দোলনে অবদানের জন্য নরসিংদী কৃতি সন্তান ভাষা সৈনিক আব্দুল করিম পাঠান(পলাশ উপজেলায় জন্ম,বর্তমানে ঢাকার বাসিন্দা) । সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য নরসিংদীর তিন জন কৃতি সন্তান যথাক্রমে বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ সরকার আবুল কালাম(নরসিংদী সদর),বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক সুরমা জাহিদ(রায়পুরায় জন্ম,বর্তমানে ঢাকার বাসিন্দা) ও বিশিষ্ট লেখক প্রফেসর কালাম মাহমুদ(গাজীপুরে জন্ম,বর্তমানে নরসিংদীর বাসিন্দা)। কবিতায় বিশেষ অবদানের জন্য চার জন কৃতি সন্তান যথাক্রমে বিশিষ্ট কবি সাবির আহাম্মেদ চৌধুরী(রায়পুরায় জন্ম,বর্তমানে ঢাকার বাসিন্দা), বিশিষ্ট কবি নূরজাহান মোস্তফা(নরসিংদী সদর), বিশিষ্ট কবি ড. মশিউর রহমান মৃধা(শিবপুরে জন্ম,নরসিংদী সদরের বাসিন্দা) ও বিশিষ্ট কবি মোতাহার হোসেন অনিক(কুমিল্লায় জন্ম,বর্তমানে নরসিংদীর বাসিন্দা)। আবৃত্তিতে বিশেষ অবদানের জন্য বিশিষ্ট আবৃত্তিকারক জহিরুল ইসলাম মৃধা(শিবপুর)।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন সম্মাননাপ্রাপ্ত প্রত্যেককে উত্তরীয় পরিদান করিয়ে,সম্মাননা ক্র্যাস্ট প্রদান ও এককালীন পাঁচ হাজার টাকার সম্মাননা অনুদান প্রদান পূর্বক সম্মানিত করেন। সম্মাননা প্রাপ্ত কবি সাহিত্যিকগণও জেলা প্রশাসক মহোদয়কে উত্তরীয় পরিয়ে শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তাঁর সংক্ষিপ্ত ভাষণে বলেন, আমি শুরু করেছি গুণীজনদের প্রতিভাকে নতুন প্রজন্মের কাছে এবং সমাজের কাছে তুলে ধরতে, যাতে করে নতুন প্রজন্ম এবং আগামী দিনের যারা দেশের কর্নদার হবেন,যারা দেশকে পরিচালনা করবেন তারা যেন নতুন করে সম্মাননা প্রাপ্ত ব্যক্তিগণের মতো সমাজে অবদান রাখতে উৎসাহিত হন। কারণ, তাদের হাত ধরেই একদিন এদেশ হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা এবং পৃথিবীর সেরা দেশ।তবেই আমাদের আয়োজন সার্থক হবে।আপনাদের কাছে আমরা ঋণী। এই ঋণ পরিশোধ করতে সামান্য চেষ্টা করেছি। আজকে সংবর্ধিত গুণীজনদের প্রতি রইল আমাদের বিন¤্র শ্রদ্ধা,অশেষ কৃতজ্ঞতা যে আপনারা উপস্থিত হয়ে আমাদের হৃদ্ধ করেছেন,সিক্ত করেছেন, অনুপ্রাণিত করেছেন। আসলে যে দেশ, যে জাতি গুণীজনদের কদর করতে জানেনা,সে দেশে গুণীজন জন্মায় না। আমরা উদ্যোগটা নিয়েছি যাতে প্রতিদিনই নরসিংদীতে গুণীজনের জন্মগ্রহণ হয়। আমি বিশ^াস করি মানুষের কর্মে,কর্মদীপ্ত ফলাফলে। গুণীজনকে যে কদর করতে হয়- এই শিক্ষাটা আমি একেবারেই পরিবার থেকে শিখেছি। আমার শিক্ষকরা আমাকে শিখিয়েছেন,এরপর শিখিয়েছেন আপনারা সকলে। আজকের আয়োজনের সকল কৃতিত্ব আপনাদের নরসিংদীবাসীর। একজন লোকের কৃতিত্ব আামি প্রকাশ করতে চাই। তিনি আজকে নাই। না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তিনি আমার পিতা। তিনি গুণীজনদের কদর কীভাবে করতে হয় তা শিখিয়েছেন তাঁর সন্তানদের । তিনি নিজেও গুণীজনদের কদর করে গেছেন। আমার ব্যক্তিগত ঋণ আমার পিতার নিকট।
সম্মাননা প্রাপ্ত গুণীজনদের মধ্যে অনুভূতি ব্যাক্ত করতে গিয়ে আবৃত্তিকারক জহিরুল ইসলাম মৃধা বলেন, আামি আন্তরিকভাবে জেলা প্রশাসন বিশেষ করে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তিনি সকলের সামনে আমার দীর্ঘ স্বপ্নের জীবনকে,দীর্ঘ স্বপ্নের কর্মকে আজ স্বীকৃতি দিয়েছেন।
ড. মশিউর রহমান মৃধা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আজকে এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নতুন মাত্রা সৃষ্টি হয়েছে নরসিংদী মাটিতে।
বাংলা একাডেমি পুরস্কার প্রাপ্ত লেখক ও গবেষক সুরমা জাহিদ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ বলেন, আমি আমেরিকাতে পুরস্কার পেয়ে যতটুকু অনুপ্রাণিত হয়েছি তার চাইতে বেশী অনুভূতি আজকে আমার ভিতরে কাজ করছে যা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। আমি আনন্দিত, আমি গর্বিত।
ভাষা সৈনিক আব্দুল করিম পাঠান জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, এ জেলার সামান্য সন্তান আমি। আমি মনে এখন থেকে এ জেলার কোন গুণীজন আর অবহেলিত থাকবে না।
কবি মোতাহার হোসেন অনিক জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি তার এই প্রাপ্তি তার মরহুম পিতার উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করেন।
কবি নুরজাহান মোস্তফা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন,আজকের ্এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে আমি গর্বিত ও আনন্দিত হয়েছি। আমার প্রত্যাশা বই পড়ে আগামী প্রজন্ম নিজেদের অবদান নিয়ে সাড়া পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়বে।
লেখক আবুল কালাম আজাদ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমি চেষ্টা করেছি নরসিংদী পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে। বিদেশে গিয়ে সম্মাননা পেয়েছি। সেখানে প্রশ্নের সম্মূখীন হয়েছি। নিজের জেলায় কী পেয়েছি? আজকে আমি অভিভূত,আনন্দিত।
বীর মুক্তিযোদ্ধা লেখক প্রফেসর কালাম মাহমুদ জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন মহোদয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আমি অভিভূত এই ভেবে যে- বর্তমান জেলা প্রশাসক যোগদানের পর নরসিংদীতে পুণরায় বই মেলা শুরু হয়েছে। নরসিংদীর বিভিন্ন সেক্টরে বহুমাতৃক পরিবর্তন আসছে। নরসিংদীবাসীর পক্ষ থেকে তাকে এবং তাঁর টিমকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও প্রাণঢালা শুভেচ্ছা।
গত ২৩ ফেব্রæয়ারি এ মেলার শুভ উদ্বোধন করেন নরিসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। উদ্বোধনের আগে গত ২০ ফেব্রæয়ারি ঢাকার চকবাজারে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় নিহতদের আত্মার শান্তি ও মাগফিরাত কামনায় ১মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। ‘উন্মোচন সাহিত্য পরিষদ’,হিমু পরিবহন, যাত্রাপথ,কবিতা জংশন,প্রথম আলো বন্ধু সভা,বাংলাদেশ শিশু একাডেমি-নরসিংদী,রায়পুরা উপজেলা প্রশাসন, বেলাব উপজেলা পরিষদ সহ ৪২টি বুক স্টল স্থাপন ছাড়াও পাঁচদিন ব্যাপী এ মেলায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ছিলো-চিত্র প্রদর্শনী, কুইজ প্রতিযোগিতা,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,জারি/সারি গান,পুঁথি পাঠ, নাটিকা, আলোচনা সভা,সেমিনার,ভাষা সৈনিক ও কবি সাহিত্যিকদের সম্মননা এবং পুরস্কার বিতরণ উল্লেখযোগ্য। কর্মসূচি বাস্তবায়নে অংশগ্রহণকারী সংগঠনগুলোর মধ্যে ছিল- জেলা প্রশাসন পরিচালিত সংগঠন ‘বাঁধনহারা’, নরসিংদী জেলা শিল্পকলা একাডেমি,মুক্তধারা সাংস্কৃতিক সংগঠন,নরসিংদী জেলা শাখা বাংলাদেশ শিশু একাডেমি,পূরবী সংগীত একাডেমি,ললিতকলা সঙ্গীত একাডেমি,সুর লহরী সাংস্কৃতিক সংগঠন, ফেমাস ইনস্টিটিউট ও নরসিংদী নাট্যাঙ্গন। এব্যারের মেলায় ছিল পাঠকদের ব্যাপক সমারোহ। মেলায় নরিসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন প্রকাশিত এবং মোতাহার হোসেন অনিক রচিত কাব্যগ্রন্থ ‘প্রিয়মুখ’ সর্বোচ্চ সংখ্যক বিক্রি করে অনন্য রেকর্ড সৃস্টি হয় ।
মেলার চতুর্থ দিনে গত ২৬ ফেব্রæয়ারি ‘বই বিমুখ প্রজন্ম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম’ শীর্ষক সেমিনার। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নরসিংদীর জনবান্ধব জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। বিশেষ অতিথি ছিলেন যথাক্রমে নরসিংদী জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আনোয়ারুল নাসের,নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও আব্দুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজের অধ্যক্ষ ড. মশিউর রহমান মৃধা। স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক(উপ-সচিব) ড. এ টি এম মাহবুব-উল-করীম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে ‘বই বিমুখ প্রজন্ম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম’ শীর্ষক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া। নতুন প্রজন্ম ফেসবুকের অপব্যবহার থেকে মুক্ত হয়ে তারা যেন বই প্রেপী হয় এবং বইকে নিত্যসঙ্গী করে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহŸান অনুযায়ী বই পড়ে জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গড়ে তোলাই হলো প্রবন্ধের মূল লক্ষ্য। অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ছিলেন অধ্যাপক জহিরুল ইসলাম মৃধা। সেমিনার শেষে কবি মহসিন খোন্দকারে উপস্থাপনায় প্রান্তোষ আর্ট স্কুলের শিক্ষর্থীদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এরপর প্রধান শিক্ষক মো: আলতাফ হোসেন এর উপস্থাপনায় মনোরম সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে ‘ফ্যামাস ইনস্টিটিউট’, নরসিংদী। এ অনুষ্ঠানের পর উপস্থাপক মোতাহার হোসেন অনিক প্রতিষ্ঠিত নরসিংদী ‘নাট্যাঙ্গন’ পরিবেশন করে মাতৃভাষা প্রেমী আকর্ষণীয় নাটক । এদিন সবশেষে কাইয়ুম সরকার ও তার দল পরিবেশন করেন বাউল গান।
অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিনে গত ২৫ ফেব্রæয়ারি অনুষ্ঠিত হয় কবিতা পাঠের আসর। নরসিংদী নান্দনিক রুচিসম্পন্ন ব্যক্তিত্বের অধিকারী সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এনডিসি) মোঃ শাহ আলম মিয়ার সুললিত ভাষায় উপস্থাপিত কবিতা পাঠের আসরে কবিতা আবৃত্তি করেন, আঞ্চলিক ভাষায় রচিত স্বনামধন্য কবি ব্যক্তিত্ব ও লেখক কবি মহসিন খোন্দকার, নান্দনিক উপস্থাপক কবি অধ্যাপক জহিরুল ইসলাম মৃধা, কবি ও নান্দনিক উপস্থাপক মোতাহার হোসেন অনিক, আবৃত্তিকার ও নান্দনিক উপস্থাপক রাজিউল্লাহ রাজীব, আবৃত্তিকার দেলোয়ারা বেগম, আবৃত্তিকার মাহমুদুল হাছান, কবি শহিদুল ইসলাম সুমন, শিশু আবৃত্তিকার কাজী মুশফিরাত তাসনিম নুহা। আসরের সবশেষে স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা বাঘাব ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এ কে ফজলুল হক ।

Print Friendly, PDF & Email
728×90 Banner

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

nineteen − 6 =